সংবাদ শিরোনামঃ
কোপা আমেরিকার কোয়ার্টার ফাইনালে আর্জেন্টিনা! ৮৫% হাসপাতালে নেই লাইফ সাপোর্টের ব্যবস্থা! ফায়ার সার্ভিস শুধু জলন্ত বাড়িঘরের আগুন নিভানোর জন্যে যায়না।খোকা মিয়া ইসরাইল গেলে বা সম্পর্ক রাখলে জেল ও জরি’মানার বিধান রেখে কুয়েতের সংসদে আইন পাস!! চলুন এবার নিজ নিজ সামর্থ অনুযায়ী দানের “শাে অফে”ভরিয়ে দেই ফেসবুকের নিউজ ফিড। আল আকসা মসজিদে রমজানে জুম’আ-তে প্রায় ৭০ হাজার মুসল্লীর জামাত নােটিশ এয়ারপাের্ট কন্ট্রাক্ট! ইমিগ্রেশন কন্ট্রাক্ট ! এয়ারপাের্ট সাপাের্ট! বাস ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ৬০ শতাংশ! মহাসড়ক অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা। ঢাকা ও দিল্লির জন্য আগামী ২৫ বছর খুব গুরুত্বপূর্ণ এবার মুখ খুললেন মাশরাফি বিন মর্তুজা
ঢাকা ও দিল্লির জন্য আগামী ২৫ বছর খুব গুরুত্বপূর্ণ

ঢাকা ও দিল্লির জন্য আগামী ২৫ বছর খুব গুরুত্বপূর্ণ

ঢাকা ও দিল্লির জন্য আগামী ২৫ বছর খুব গুরুত্বপূর্ণ

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মােদি বলেছেন, এটি একটি আনন্দময় ও কাকতালীয় ঘটনা যে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর ও ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর একসঙ্গে পড়েছে উভয় দেশের জন্য আগামী ২৫ বছর খুবই গুরুত্ব’পূর্ণ। আমরা ঐতি”হ্যের অংশী’দার। আমরা উন্নয়নেরও অংশী’দার। আমরা লক্ষ্য ভাগা”ভাগি করি। চ্যালেঞ্জও ভাগা”ভাগি করি।

মনে রাখতে হবে বাণিজ্য ও শিল্পে আমাদের জন্য একই ধরনের সম্ভাবনা রয়েছে। তেমনি ‘সন্ত্রাসবাদের মতাে সমান বিপদও রয়েছে। এ জাতীয় অমানবিক ঘটনা”বলির পরিকল্প’না’কারী ও বাস্তবে রূপদান”কারী শক্তিগুলাে এখনাে সক্রিয়। আমাদের অবশ্যই তাদের থেকে সাবধান থাকতে হবে এবং মােকাবেলা করার জন্য সংগঠিতও হতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর নাম ও ছবি দিয়ে দোকানের সাইনবোর্ড,এলাকায় তুলকালাম!

আমাদের উভয় দেশেই গণতন্ত্রের শক্তি রয়েছে। এগিয়ে যাওয়ার সুস্পষ্ট দূরদর্শিতা রয়েছে। ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ অগ্রযাত্রা এ পুরাে অঞ্চলের উন্নয়নের জন্য সমান জরুরিবঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আয়ােজিত অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মুজিব চিরন্তন’ শিরােনামে ১০ দিনব্যাপী এ আয়ােজনের গতকালই ছিল শেষ দিন। পুরাে উৎসবে যােগদানকারী বিশ্বনেতাদের মধ্যে পঞ্চম রাষ্ট্রীয় অতিথি হিসেবে যােগ দিয়েছেন নরেন্দ্র মােদি। গতকাল অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্য রাখেন তিনি।

গতকালের আয়ােজনের প্রতিপাদ্য ছিল স্বাধীনতার ‘৫০’ বছর ও অগ্রগতির সুবর্ণরেখা। রাষ্ট্রপতি মাে. আবদুল হামিদ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। প্রধানমন্ত্রীর। ছােট বােন শেখ রেহানাও অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে যােগ দেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বিকাল সাড়ে ৪টায় জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে উপস্থিত হন নরেন্দ্র মােদি। উদ্যাপন অনুষ্ঠানে মুজিব কোট পরে উপস্থিত হন তিনি।অনুষ্ঠানের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে। অভ্যর্থনা জানান। এ সময় তার বােন শেখ রেহানাও সঙ্গে ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জা’তির জনক বঙ্গ”বন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’কে ভারতের পক্ষ থেকে দেয়া গান্ধী শান্তি পুরস্কার’ হস্তান্তর করেন নরেন্দ্র মােদি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানা তার হাত থেকে এ পুরস্কার গ্রহণ করেন। এ সময় শেখ। রেহানা ভারতের প্রধানমন্ত্রীর হাতে ‘মুজিব চিরন্তন স্মারক তুলে দেন।

সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রমাণ করেছি, পারস্পরিক বিশ্বাস ও সহযােগিতা থাকলে সব সমস্যা সমাধান করা যায়। আমাদের স্থলসীমান্ত চুক্তি এর সাক্ষী। করােনার এ দুঃসময়েও দুটি দেশের মধ্যে সুন্দর সম্পর্ক বজায় রয়েছে। আমরা সার্ক কভিড তহবিল গঠনে সহযােগিতা করেছি। নিজেদের মানবসম্পদের প্রশিক্ষণে সহায়তা করেছি।

অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ বিশ্বে তার সক্ষমতা প্রদর্শন করছে। যারা বাংলাদেশ গঠনে আপত্তি করেছিলেন; যারা এখানকার মানুষকে নিচু চোখে দেখতেন, যারা বাংলাদেশের অস্তিত্ব নিয়ে সন্দিহান ছিলেন, বাংলাদেশ তাদের ভুল প্রমাণ করেছে।

এ সময় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে ভারতীয়দের অংশগ্রহণের ইতিহাস তুলে ধরে নরেন্দ্র মােদি বলেন, (আমাদের) এমন সম্পর্ক তৈরি করতে হবে, যা কোনােভাবেই ভাঙবে না। কোনাে কূটনীতির চালের শিকার হবে না।
বক্তব্যে নরেন্দ্র মােদি জানান, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের পক্ষে সত্যাগ্রহ আন্দোলন করে গ্রেফতার হয়েছিলেন তিনি।

তার গতকালের বক্তব্যটি ছিল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও কাজী নজরুল ইসলামের কবিতায় সাজানাে। এ সময় বাংলায় বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ থেকেও কিছু অংশের উদ্ধৃতি দেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। এ সময় ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের তরুণদের জন্য সুবর্ণজয়ন্তী বৃত্তির ঘােষণা দেন। বাংলাদেশী ব্যবসায়ীদের ভারতে বিনিয়ােগেরও আহ্বান জানান তিনি। পাশাপাশি নরেন্দ্র মােদির বক্তব্যে উভয় দেশের ব্যবসায়ীদের মত ও অভিজ্ঞতা বিনিময়ের গুরুত্বও উঠে আসে।

জাতীয় প্যারেড গ্রাউ’ন্ডের অনুষ্ঠান শেষে গতকাল সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যৌথভাবে ‘বঙ্গবন্ধু-বাপু জাদুঘর’ উদ্বোধন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। সেখানে প্রধানমন্ত্রী আয়োজিত ‘রাষ্ট্রীয়’ ভোজেও যোগ দেন তিনি।

এর আগে গত’কাল সকাল সাড়ে ১০টা দিগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম”শত’বার্ষিকী’ ও ‘স্বাধীনতার’ সুবর্ণ”জয়ন্তী উদযাপন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দুদিনের ‘রাষ্ট্রীয়’ সফরে ঢাকায় পৌঁছান নরেন্দ্র মোদি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি উড়োজাহাজ হযরত শাহ’জালাল আন্ত’র্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। এ সময় প্রধান’মন্ত্রী ‘শেখ হাসিনা’ ভারতের প্রধান’মন্ত্রী’কে স্বাগত জানান। বিমানবন্দরে নরেন্দ্র মোদিকে লালগালিচা সংবর্ধনা দেয়া হয়।

আপনার মতামত জানান

শেয়ার করুনঃ

খুজুন




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

© ২০২০ | নিউজ ইবিডি ২৪ কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত 
Design BY NewsTheme