সংবাদ শিরোনামঃ
মালয়েশিয়ায় বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু বরণ করলো রেমিট্যান্স যোদ্ধা সাইদুল! পটুয়াখালীর একই পরিবারের ৫৭ জন কোরআনের হাফেজ! আমেরিকার একটি অঙ্গরাজ্যে খ্রিস্টান ভদ্রমহিলার ইসলাম গ্রহণ! বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গন থেকে ঝরে গেলো আরো একটি নক্ষত্র এটিএম শামসুজ্জামান নিউজিল্যান্ড সিরিজে টাইগাদের চমক দেখালো সিলেটের নাসুম করোনামুক্ত হলেন ইসলামিক ব্যক্তিত্ব শায়খ আহমাদুল্লাহ বাংলাদেশি গৃহকর্মী আবিরন হ’ত্যা মা’মলায় সৌদি নাগরিককে মৃ’ত্যুদণ্ড দিয়েছে কুকুরের আক্রমণ থেকে হরিণ উদ্ধার করলো গ্রামবাসী জিয়াউর রহমান নয়, ২৬ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা’পত্র পাঠ করেছিলেন এম এ হান্নান পুলিশি হামলার প্রতিবাদে রিজভীর নেতৃত্বে বিশাল মশাল মিছিল
বছরে দুটি বাছুর জন্ম দেওয়ার প্রযুক্তিতে সাফল্যে বাংলাদেশ !

বছরে দুটি বাছুর জন্ম দেওয়ার প্রযুক্তিতে সাফল্যে বাংলাদেশ !

বছরে দুটি বাছুর জন্ম দেওয়ার প্রযুক্তি

বছরে দুটি বাছুর জন্ম দেওয়ার প্রযুক্তিতে সাফল্যের দাবি প্রাণী সম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। ইনস্টিটিউটের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ডাঃ গৌতম কুমার দেব বলেছেন, “এই প্রযুক্তি দেশে নতুন।” প্রাথমিক সাফল্যের পরে আমরা মাঠ পর্যায়ে এটি অনেক দিন ধরে বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। যদি সফল হয় তবে নিঃসন্দেহে এটি দেশের গবাদি পশু সম্পদের উপর বিশাল প্রভাব ফেলবে।

 

জাতীয় বাংলাপিডিয়া জানিয়েছে যে দেশে গরুর সংখ্যা প্রায় আড়াই কোটি। গবাদি পশুর বৈশ্বিক সূচকে বাংলাদেশ ১ম হয়েছিলো। তবে গবাদি পশু, মহিষ, ভেড়া ও ছাগলসহ সকল গবাদি পশুর দিক দিয়ে বাংলাদেশ তখন বিশ্বের দ্বাদশ স্থানে ছিল।

এখন বিজ্ঞানীরা আশা করছেন যে, দেশে বছরে উন্নত মানের গরুর দুটি বাছুরের প্রকল্পটি যদি সফল হয় তবে তা গবাদি পশু উন্নয়নে বিস্তর ভূমিকা রাখবে। গবাদি পশু এবং এর মাধ্যমে জনসাধারণ জীবনযাত্রার মান আরও উন্নত হবে।

 

তবে নতুন প্রযুক্তি কী? এটা কিভাবে কাজ করে?
আমাদের দেশের ডাঃ গৌতম কুমার দেব বলেছেন যে প্রযুক্তির নাম ইনভিট্রো এমব্রায়ো প্রোডাকশন বা আইভিপি। তবে কিছু লোক একে আইভি এ-ও বলে থাকে।

“গৌতম কুমার দেব বলেন-প্রাথমিক সাফল্যের কারণে, আমরা এখন প্রিন্সের মতো ভাল মানের প্রাণী বেছে নিচ্ছি, ‘হ্যাঁ, আমরা সবেমাত্র অ্যান্টিমনি বাচ্চা পেয়েছি, এবং আমরা এই প্রাণীগুলির থেকেই বীজ  সংগ্রহের কাজ করব” ” আমরা আশা করি এটি মাঠ পর্যায়েও সফল হবে এবং তারপরে আমরা এটি সবার কাছে ছড়িয়ে দিতে সক্ষম হব, তিনি আরও বলেছেন, “স্বাস্থ্যকর ও ভাল মানের গরুর বীজদিয়ে অনেকগুলি গরু গর্ভধারণ করা সম্ভব হবে।”

 

কৃত্রিম গর্ভধারণের আগেও করা হতো তবে গবাদি পশুদের কৃত্রিম গর্ভাধান দেশে নতুন কিছু নয় এবং সরকার দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে পশুচিকিত্সককে এই কাজে সহায়তা করার জন্য নিয়োগ দিয়েছে।

মূলত, কয়েক বছর আগে থেকেই আমাদের দেশে বছরে দুটি বাছুর জন্মের ধারণা সাফল্য অর্জন করেছে। গত চার বছরে একাধিক পরীক্ষায় একক গাভীর একজোড়া বাছুরকে জন্ম দেওয়ার পরে গবেষকরা এখন মনে করছেন এটিকে মাঠ পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।

 

একটি ষাঁড়ের বীজ থেকে প্রতিবছর ৬০ থেকে ৭০ টি গরু প্রজনন করা সম্ভব হবে। তবে কৃত্রিম গর্ভের মাধ্যমে ৫ থেকে ১০ হাজার গরু প্রজনন করা যায়। “সাধারণত একটি ষাঁড় মোট ৮০০ থেকে ৯০০ টি বাছুর জন্মের জন্যে অবদান রাখতে পারে।

সূত্র: (বিবিসি)

আপনার মতামত জানান

শেয়ার করুনঃ

খুজুন




সর্বশেষ সংবাদ

© ২০২০ | নিউজ ইবিডি ২৪ কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত 
Design BY NewsTheme