সংবাদ শিরোনামঃ
বাস ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ৬০ শতাংশ! মহাসড়ক অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা। ঢাকা ও দিল্লির জন্য আগামী ২৫ বছর খুব গুরুত্বপূর্ণ এবার মুখ খুললেন মাশরাফি বিন মর্তুজা স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে লকডাউন প্রয়োজন হবে না.স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক নারী-পুরুষের সমান অংশগ্রহণে,নারীর সমানাধিকারে ব্যাপ্তি বাড়বে ২০ ট্রিলিয়ন ডলার দেশে পৌঁছেছে ওমানের দুকুম শহরে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহ’ত প্রবাসে লক্ষ লক্ষ টাকা কামানো মেশিন গুলির কফিন বন্দী লা’শ! ১লা জুলাই আপনার বেতন কত হবে জেনে নিন। জেনে নিন টিন সার্টিফিকেট বাতিল করার নিয়ম আমন মৌসুমে ধান-চাল সংগ্রহে ব্যর্থ খাদ্য অধিদফতর নির্ধারিত দিনে না এলেও পরে দেওয়া যাবে করো’নার টিকা
বাস ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ৬০ শতাংশ! মহাসড়ক অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা।

বাস ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ৬০ শতাংশ! মহাসড়ক অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা।

বাস ভাড়া বাড়ানো হয়েছে ৬০ শতাংশ! মহাসড়ক অবরোধ করেন বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা।

অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে গণপরিবহন চালানাের নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। এজন্য গতকাল থেকে বাস ভাড়া বাড়ানাে হয়েছে ৬০ শতাংশ। নির্দেশনা কার্যকরের প্রথম দিনটি রাজধানীর যাত্রীদের জন্য ছিল চরম দুর্ভোগের। “আসন ফাঁকা রাখতে গিয়ে বেশির ভাগ বাস চলেছে দরজা লাগিয়ে।স্টপেজে দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে কপালগুণে দু-একজন উঠতে পারলেও যাত্রীদের বড় অংশই বাসের নাগাল পাননি গতকাল। বাড়তি ভাড়া গুনে রিকশা-অটোরিকশা আর হেঁটেই যেতে হয়েছে গন্তব্যে।

বাসে উঠতে না পেরে বেলা ১১টার দিকে খিলক্ষেত এলাকায় মহাসড়ক অবরােধ করেন বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা। যারা দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার পর নানা কসরত করে বাসে উঠতে পেরেছেন তাদের অভিযােগ, কোনাে বাসই অর্ধেক আসন ফাঁকা রাখেনি। সব সিটে যাত্রী তােলার পাশাপাশি দাঁড়ানাে যাত্রী পরিবহন করা হয়েছে। যদিও বাসের কর্মীরা আদায় করেছেন সরকার ঘােষিত বর্ধিত ভাড়া। | এ নিয়ে বাসের কন্ডাক্টরদের সঙ্গে বিতণ্ডায় জড়িয়েছেন অনেকেই।

আরও পড়ুনঃ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে লকডাউন প্রয়োজন হবে না.স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক

বিপরীতে পরিবহন কর্মীদের দাবি, যাত্রীদের চাপের কারণেই পূর্ণ আসনে চলতে বাধ্য হচ্ছেন তারা। সমস্যাটি বেশি হয়েছে সকাল ৮টা থেকে ১০টা এবং বিকাল ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সময়ে। অফিস শুরু ও শেষ হওয়ার সময়ে ঢাকায় এমনিতেই গণপরিবহনে যাত্রীর চাপ বেশি থাকে। গতকাল থেকে বাসে যাত্রীর সংখ্যা সীমিত করে দেয়ায় সমস্যার্টি প্রকট আকার ধারণ করেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে যে স্বাস্থ্যবিধির জন্য এত কড়াকড়ি গতকাল সরেজমিন ঘুরে গণপরিবহনে সে স্বাস্থ্যবিধিই তেমন চোখে পড়েনি। বাসের অর্ধেক সিট যেমন ফাঁকা ছিল না, তেমনি যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের অনেককেই দেখা গেছে মাফ ছাড়া চলাচল করতে। কোনাে বাসেই যাত্রী ওঠানাের সময় হাত জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা ছিল না। এমনকি একটি ট্রিপ শেষ করার পর, গাড়ি জীবাণুমুক্ত করার নির্দেশনা থাকলেও তা মানতে দেখা যায়নি কোনাে বাসকে।

এমন প্রেক্ষাপটে প্রশাসনের সিদ্ধান্তটিকে ‘অমানবিক হিসেবে অভিহিত করেছেন যাত্রীরা। ফেসবুক গ্রুপ ‘ট্রাফিক অ্যালার্টে’ একজন লিখেছেন, ‘শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, অন্যান্য সবকিছু খােলা রেখে গণপরিবহনে ৫০ শতাংশ যাত্রী পরিবহন এবং ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানাের সিদ্ধান্তটি। কর্মব্যস্ত মানুষের হয়রানি বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রতিটি বাসস্ট্যান্ডে শত শত মানুষ দাঁড়িয়ে আছে বাসে ওঠার জন্য। যাত্রীদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা না করে হুটহাট এমন সিদ্ধান্ত হতাশাজনক।

আরেকজন লিখেছেন, শ্যামলী থেকে ধানমন্ডি পুরাে রাস্তা হেঁটে এলাম। একটা বাসেও সিট খালি পাওয়া যাচ্ছে না। সবচেয়ে খারাপ লাগছিল সােহরাওয়ার্দী হাসপাতালের সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষগুলাের জন্য।ডাক্তার দেখাতে এসে, রােদে গরমে পুড়ে আরেক দফা অসুস্থ হতে | হবে। ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ জানান, তারা নিয়ম মেনে বাস চালানাের চেষ্টা করেছেন।

রাইডশেয়ারে মােটরসাইকেল চলাচল বন্ধ: দেশে নভেল করােনাভাইরাসে দৈনিক সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে রাইডশেয়ারিং সার্ভিসের মাধ্যমে মােটরসাইকেলে যাত্রী পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। গতকাল এ সম্পর্কিত একৰ্তি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সংস্থাটি। এতে বলা হয়েছে, করােনা সংক্রমণ ঠেকাতে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত (আপাতত দুই সপ্তাহ) রাইডশেয়ারিং সার্ভিসে মােটরসাইকেলে যাত্রী পরিবহনে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এছাড়া গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও ধারণক্ষমতার অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের নির্দেশনাও দিয়েছে দেশের পরিবহন খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।

লঞ্চের ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়ানাের প্রস্তাব: করােনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতিতে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন করায় বাসের মতাে লঞ্চের ভাড়াও ৬০ শতাংশ বাড়ানাের প্রস্তাব করেছেন লঞ্চ মালিকরা। মালিকদের এ প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) গতকাল এ প্রস্তাব নৌ পরিবহন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে।

বর্তমানে ১০০ কিলােমিটার পর্যন্ত প্রতি কিলােমিটার লঞ্চ ভাড়া ১ টাকা ৭০ পয়সা ও ১০০ কিলােমিটারের বেশি ১ টাকা ৪০ পয়সা এবং জনপ্রতি সর্বনিম্ন ভাড়া ১৮ টাকা নির্ধারিত আছে। মন্ত্রণালয় এ-সংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমােদন দিলে এর সঙ্গে ৬০ শতাংশ ভাড়া অতিরিক্ত গুনতে হবে যাত্রীদের। ১১ এপ্রিলের পর আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট বিক্রি বন্ধ: পরবর্তী ঘােষণা না দেয়া পর্যন্ত আগামী ১১ এপ্রিলের পর থেকে সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট বন্ধ রাখা হবে।

গতকাল বাংলাদেশ রেলওয়ে থেকে জারি হওয়া এক প্রজ্ঞাপনে বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। প্রজ্ঞাপনে আরাে বলা হয়েছে, ১১ এপ্রিলের আগ পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনের আসনসংখ্যার ৫০ শতাংশ ঠিকিট একই সঙ্গে অনলাইন, মােবাইল অ্যাপ এবং কাউন্টার থেকে বিক্রি করা হবেট্রেনগুলােয় ক্যাটারিং সেবা প্রদান ও রাত্রিকালীন বেডিং সরবরাহের ক্ষেত্রে স্বাস্থ্যবিধি কঠোরভাবে প্রতিপালন করা হবে।

আপনার মতামত জানান

শেয়ার করুনঃ

খুজুন




সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

© ২০২০ | নিউজ ইবিডি ২৪ কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত 
Design BY NewsTheme