সংবাদ শিরোনামঃ
মালয়েশিয়ায় বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু বরণ করলো রেমিট্যান্স যোদ্ধা সাইদুল! পটুয়াখালীর একই পরিবারের ৫৭ জন কোরআনের হাফেজ! আমেরিকার একটি অঙ্গরাজ্যে খ্রিস্টান ভদ্রমহিলার ইসলাম গ্রহণ! বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গন থেকে ঝরে গেলো আরো একটি নক্ষত্র এটিএম শামসুজ্জামান নিউজিল্যান্ড সিরিজে টাইগাদের চমক দেখালো সিলেটের নাসুম করোনামুক্ত হলেন ইসলামিক ব্যক্তিত্ব শায়খ আহমাদুল্লাহ বাংলাদেশি গৃহকর্মী আবিরন হ’ত্যা মা’মলায় সৌদি নাগরিককে মৃ’ত্যুদণ্ড দিয়েছে কুকুরের আক্রমণ থেকে হরিণ উদ্ধার করলো গ্রামবাসী জিয়াউর রহমান নয়, ২৬ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা’পত্র পাঠ করেছিলেন এম এ হান্নান পুলিশি হামলার প্রতিবাদে রিজভীর নেতৃত্বে বিশাল মশাল মিছিল
পটুয়াখালীর একই পরিবারের ৫৭ জন কোরআনের হাফেজ!

পটুয়াখালীর একই পরিবারের ৫৭ জন কোরআনের হাফেজ!

পটুয়াখালীর একই পরিবারের ৫৭ জন কোরআনের হাফেজ!

পটুয়াখালী প্রতিনিধি। পবিত্র কোরআন শরিফের হাফেজ হয়েছেন পটুয়াখালীর জেলার বাউফল উপজেলায় একই পরিবারের ৫৭ জন। এমন বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে ইতিমধ্যে পটুয়াখালী জেলায় সুনাম কুড়িয়েছেন বাউফল উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দা শাহজাহান হাওলাদার(৭২)।

একই পরিবারের (৫৭) জন পবিত্র কোরআন শরিফের হাফেজ হলেন। ‘হাফেজ মাওলানা মজিবুর রহমান’ ‘হাফেজ মাওলানা নূর হােসেন,’ ‘হাফেজ মাওলানা আবু বকর’, ‘হাফেজ মাওলানা মােহাম্মদ হাসান,’ ‘হাফেজ মাওলানা মােঃ সােলাইমান,’ ‘হাফেজ মাওলানা এমদাদুল্লাহ,’ ‘হাফেজ মাওলানা তালহা’, ‘হাফেজ ইব্রাহীম,

হাফেজ মাে. জোবায়ের, হাফেজ মাওলানা সালাহ উদ্দিন, হাফেজ মাওলানা সালমান, হাফেজ মাওলানা জোনায়েদ, হাফেজ মাওলানা সফিক,হাফেজ মাওলানা সিদ্দিকুর রহমান, হাফেজ মাওলানা সাইফুল্লাহ, হাফেজ মাওলানা আবদুল্লাহ, হাফেজ মাওলানা লােকমান,

আরও পড়ুনঃ আমেরিকার একটি অঙ্গরাজ্যে খ্রিস্টান ভদ্রমহিলার ইসলাম গ্রহণ!

হাফেজ মাওলানা রাইহান, হাফেজ মাওলানা ইমরান, হাফেজ মােহাম্মদ, হাফেজ মাওলানা ইলিয়াস, হাফেজ আহমদ, হাফেজ মাওলানা নােমান, হাফেজ মাওলানা রেদওয়ান, হাফেজ মাওলানা রােহান, হাফেজ মাওলানা সানাউল্লাহ,
হাফেজ মাওলানা সাকাওয়াতুল্লাহ, হাফেজ মাওলানা আব্দুল্লাহ, হাফেজ আবদুল আলীম, হাফেজ মাওলানা জোবায়ের, হাফেজ মাওলানা আবদুল্লাহ হাফেজা মাওলানা মানসুরা, হাফেজ মাওলানা ফারহা, হাফেজ মাওলানা মারওয়া, |

হাফেজা মাওলানা ফাতেমা, হাফেজ মাওলানা রাহিমা, হাফেজা বুশরা, হাফেজা ইসরা, হাফেজা মােসা. খাদিজা, হাফেজা মােহাইমিনা, হাফেজা মুসফিকা,হাফেজা মােবাশ্বেরা, হাফেজা সামসুন্নাহার, হাফেজা নাসিমা, হাফেজা সুমাইয়া, হাফেজা মারজান, হাফেজা আফনান, হাফেজা রাউয়ান,

হাফেজা খানসা, হাফেজা মনিরা, হাফেজা উম্মেহানী, হাফেজা নাসরিন, হাফেজা নাদিফা, হাফেজা আম্মারা, হাফেজা আয়শা, হাফেজা সামাইয়া মিনি, হাফেজা আবু হােরায়রা, হাফেজ হুজাইফা।স্থানীয়রা আরও বলেন, বাউফল সদর উপজেলার বাঁশবাড়িয়া গ্রাম এলাকার বাসি’ন্দা ‘হাজি আকরাম আলী হাওলাদার’ পেশায় প-িত ”শিক্ষক” ছিলেন।

হাজি আকরাম আলী হাওলাদারের ছেলে নুর মােহাম্মদ হাওলাদার, তিনিও পেশায় প-িত (‘শিক্ষক’) ছিলেন। নুর মােহাম্মদ হাওলাদারের ছেলে হাজী শাহজাহান হাওলাদারের সঙ্গে কনকদিয়া ইউনিয়নের বােলতলী গ্রাম এলাকার বাসিন্দা কাঞ্চন মুন্সি সিকদারের মেয়ে মাঞ্জুরা বেগমের পরিবারিকভাবে বিয়ে হয়।

শাহজাহান ও মাস্তুরা দম্পতির ঘর আলাে করে একে একে ছয় ছেলে ও চার মেয়ে জন্ম নেন। শাহজাহান হাওলাদার বাউফল সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। তিনি নিজ এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রতিষ্ঠা করেছেন হাফেজিয়া মাদ্রাসা। |পবিত্র কোরআনের হাফেজ বানিয়েছেন নিজের ছেলে-মেয়েসহ পরিবারের অন্যদেরও। তাদের বিয়েও দিয়েছেন হাফেজদের সঙ্গে। বর্তমানে তার পরিবারে ৫৭ জন কোরআন শরিফের হাফেজ।

শাহজাহান হাওলাদার বলেন, তার বাবা নুর মােহাম্মদ) ছিলেন ধর্মপ্রাণ মুসলমান। তিনি হজ পালন করতে সৌদি আরবে যান।
সেখানে হজ পালনরত অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। তার বাবা হাফেজদের খুব ভালােবাসতেন। এ কারণেই লক্ষ্য স্থির করেছেন, পরিবারের সবাইকে হাফেজি পড়াবেন।

বাউফল আশরাফুল কওমি মাদ্রাসার ‘প্রতিষ্ঠাতা’ হাফেজ মাওলানা মাইনুল ইসলাম বলেন, সমাজে একই পরি’বারের ৫৭ জনই কোরআন শরিফের হাফেজ হওয়ায় শাহজাহান হাওলাদার জেলায় সুনাম কুড়িয়েছেন।৪৫ বছর আগে স্ত্রীর ১৩ ভরী স্বর্ণ ও ১৩ কেজি রুপা মাদ্রাসায় দান করেন তিনি। তা দিয়েই বাড়ির সামনে প্রথম মাদ্রাসা স্থাপন করা হয়। এখনাে নিজের খরচে মাদ্রাসা পরিচালনা করছেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, জামিয়া ইসলামীয়া আমেনা খাতুন মহিলা মাদ্রাসায় শাহজাহান হাওলাদারের ছেলে হাফেজ জোবায়ের শিক্ষার্থীদের কোরআন পড়াচ্ছেন। শিক্ষার্থীরা সুমধুর কন্ঠে কোরআন তিলাওয়াত করছে।

রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, কোরআনের বাহক’কে ‘জান্নাতে’ প্রবেশ কালে বলা হবে , তুমি পাঠ করতে থাকো এবং উপরে আহরন করতে থাকো। অত:পর সে পড়তে থাকবে এবং প্রতিটি আয়াত পড়ার সাথে সাথে একটি স্তর অতিক্রম করবে। এভাবে সে তার জ্ঞাত শেষ আয়াত”টি ‘পর্যন্ত’ পড়বে। (আবু দাউদ-১৩১৭,আহমাদ-১০৯৬৮)

আপনার মতামত জানান

শেয়ার করুনঃ

খুজুন




সর্বশেষ সংবাদ

© ২০২০ | নিউজ ইবিডি ২৪ কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত 
Design BY NewsTheme