মিনিবাসের আসন পূরণ করে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

মিনিবাসের আসন পূরণ করে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

মিনিবাসের আসন পূরণ করে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

সরকার মিনিবাসের আসন পূরণ করে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি দিয়েছে। যাত্রীদের উঠিয়ে দাঁড়িয়ে নেয়া যাবে না, যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের মাক্ক ও মুখোশ পরতে হবে সবাইকে ক;রোনা কালে আগের গাড়ি বাড়ায় ফেরত যেতে হবে, এই তিনটি শর্ত পূরণের মাধ্যমে যাত্রীদের পরিবহণের সিদ্ধান্তটি ২ সেপ্টেম্বর থেকে কার্যকর হবে তবে বর্ধিত ভাড়া বাতিলকরণ কতটা কার্যকর হবে তা নিয়ে এখনও সংশয় রয়েছে।

শনিবার (২৯ আগস্ট) সড়ক পরিবহনমন্ত্রী তার বাসা থেকে সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে ভিডিও জোনের কর্মকর্তাদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে বাস ও মিনিবাস চালানোর নতুন সিদ্ধান্তের কথা জানান। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি আগের ভাড়া ফেরত দেওয়ার বিষয়ে ইতিমধ্যে উত্থাপিত সংশয় সম্পর্কে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন। এটা ঠিক, মালিকরা স্বীকার করতে না চাওয়ার অনেক সময়, আমরা নজর রাখব।

করোনার পরিস্থিতিতে বাস-মিনিবাসের ভাড়া বাড়ানো শর্তগুলির সাথে মালিকরা মেনে চলেন না। পরিবহন মালিকরা এবার বর্ধিত ভাড়া বাতিলের বাস্তবায়ন করবেন কিনা তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে। যাত্রী কল্যাণ সমিতির সেক্রেটারি জেনারেল মোজাম্মেল হক চৌধুরী এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তবে আমরা চেয়েছিলাম আগের বর্ধিত ৬০ শতাংশ প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিত।

কখনও কখনও যখন বাজেট থাকে তখন কম্পিউটারের হারের মূলধনটি ব্যবহার করবেন না। মূলধন চালিত মিনিবাসের জন্য কোনও বাড়ার তালিকা নেই। কয়েকটি বড় বাসের ভাড়া তালিকা থাকলেও বেশিরভাগ বাসের তালিকা থাকে না।করোনার ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে সরকার ২৬ শে মার্চ গণপরিবহন বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়। পরে শর্তসাপেক্ষে গণপরিবহন পরিবহন ১ জুন থেকে চালু করা হয়। অর্ধেক আসন শূন্যসহ বিভিন্ন শর্তসহ গণপরিবহন সীমিত আকারে চালু করা হয়েছিল।

পরিবহন শ্রমিক এবং যাত্রীদের অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে তারা যাত্রীদের যাত্রা শুরু করার আগে এবং বাসে জীবাণুনাশক ব্যবহার করে জীবাণুমুক্ত করার আগে প্রতিটি ভ্রমণে যাত্রীদের ফেলে দিয়ে তারা স্বাস্থ্যবিধি, হ্যান্ড স্যানিটাইজারের বিধি মেনে মাস্ক পরবেন। ওঁ সমস্ত শর্ত মানার প্রতি শ্রুতিতে সরকার ৬০ শতাংশ, ভাড়া বাড়িয়ে দেয় ওঁই সময় , যদি ও ৭০/৮০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানোর দাবি ছিল মালিকদের।

করোনা সময়, পরিবহন মালিকরা কিছু সময়ের জন্য শর্তগুলি মেনে নিয়েছিল, তবে ইদুল আজহার আগে সমস্ত কিছু আলাদা হয়ে যায়। সরকারের পক্ষ থেকে কোন শর্ত দেওয়া হয়নি। তবে বর্ধিত ভাড়ার ৬০ শতাংশ নেওয়া হয়েছে। এই পরিস্থিতির পরে, বিভিন্ন মহল থেকে বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের দাবি ছিল। গত ১২ আগস্ট, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী,আতিকুর রহমান পক্ষের অ্যাডভোকেট মোঃ হাসিম উদ্দিনের শেষ পর্যায়ের প্রত্যক্ষদর্শীদের মধ্যে নতুন করে ফিরে আসা হয়েছে। এখানে গত ১১ ই আগস্ট মহেঞ্জো-দারোতে মোজাম্বিক মার্কেটের সংবাদ কভারেজের গল্পটি দেওয়া হয়েছে।

২৩ শে আগস্ট তিনি গণমাধ্যমের কাছে একই দাবি জানিয়ে একটি বিবৃতি পাঠিয়েছিলেন। ১৮ ই আগস্ট, বাস মালিকদের সংগঠনগুলি বিভিন্ন স্তরের মানুষের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহারের বিষয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে (বিআরটিএ) একটি চিঠি দেয়। চিঠির জবাবে, ১৯ আগস্ট বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ, বাস মালিকদের সংগঠন এবং শ্রমিক নেতাদের নিয়ে বনানীর বিআরটিএ প্রধান কার্যালয়ে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বাস মালিকরা যাত্রী পরিবহনের শর্তে বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার করতে চান।

এ সময় বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের বহন না করা এবং মুখোশ পরতে বাধ্যতামূলক করে বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের জন্য মন্ত্রিসভায় একটি সুপারিশ পাঠিয়েছিল। এই শর্তে ২ সেপ্টেম্বর থেকে গণপরিবহন চালু করা হচ্ছে। বাস মালিকরা নতুন শর্ত মেনে চলবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাব ডাকা জেলা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্লাহ বলেন, আমরা বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের জন্য একটি চিঠি দিয়েছেন । নিয়োগকর্তা-শ্রমিক এবং বিআরটিএ কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকে চুক্তি হয়েছিল। বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহারের সাথে সাথে আমরা এবং কর্মীরা প্রতিদিনের ঝগড়া থেকে মুক্তি পেয়েছি।

করোনার আগে দেখা যায়নি, সদর মিরঘাট, জয়লিলি, মাতরিলির আগস্ট প্রজাপতি, শিখর, মিরপুর থেকে দিশারী এলাকার যাত্রীরা ২০ টাকা দাবি করে শহীদ হয়েছেন, মেয়েদের নাম লেখা হয়নি। ভেনা বদের তালিকায় নেই এখন সত্যটি শেষ পর্যায়ে প্রত্যক্ষদর্শী কিনা, বৈঠকগুলির আগে উপায়টি জানার দরকার নেই, রাজধানীর গতিবিধি সম্পর্কে বা দীর্ঘ-দূরত্বের গণিত তালিকার তথ্যগুলি স্বাধীন গণিতবিদরা সঙ্গে সঙ্গে প্রকাশ করবেন না। এমন পরিস্থিতিতে বর্ধিত ভাড়া প্রত্যাহার কার্যকর হবে কি না, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাহজাহান খান বলেছেন, “আমরা এটি চাপিয়ে দেব। কারণ মালিক-শ্রমিক এবং সরকার ইস্যুতে একমত।

 

আপনার মতামত জানান

শেয়ার করুনঃ

খুজুন




সর্বাধিক পঠিত

© ২০২০ | নিউজ ইবিডি ২৪ কর্তৃক সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত 
Design BY NewsTheme